বুধবার ১৭ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ২রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

গোয়াইনঘাটে জমে উঠেছে প্রচারণা, লড়াই হবে মোটরসাইকেল ও ঘোড়া প্রতীকে

মো. আজিজুর রহমান, গোয়াইনঘাট   |   শনিবার, ১৮ মে ২০২৪   |   প্রিন্ট   |   65 বার পঠিত

গোয়াইনঘাটে জমে উঠেছে প্রচারণা, লড়াই হবে মোটরসাইকেল ও  ঘোড়া প্রতীকে

আগামী ২১ মে সিলেটের গোয়াইনঘাটে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ২য় ধাপের ভোট গ্রহণ। এ ধাপে গোয়াইনঘাট উপজেলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এরই মধ্যে গোয়াইনঘাট উপজেলায় নির্বাচন জমে উঠেছে। উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে জমজমাট প্রচার-প্রচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে উপজেলা। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে চলছে জনসংযোগ। ব্যানার পোস্টার আর বিলবোর্ড ছেয়ে গেছে গ্রাম থেকে উপজেলা সদর। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দুই প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাদের একজন মোটরসাইকেল প্রতীকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মোহাম্মদ ফারুক আহমদ। অপরজন ঘোড়া প্রতীকে চেয়ারম্যান আসনে বসতে চান উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও সিলেট জেলা বিএনপি কোষাধ্যক্ষ (বর্তমানে বহিষ্কৃত) আলহাজ্ব শাহ আলম স্বপন। দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীই নির্বাচনী প্রচার জোরদার করার পাশাপাশি নিজ নিজ কৌশল প্রয়োগ করে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। নির্বাচনের শেষ প্রান্তে এসে নানামুখী মেরুকরণ হচ্ছে।

প্রার্থীদের জয় পরাজয়ের ফ্যাক্টর হিসেবে সামনে আসছে বিভিন্ন সমীকরণ। অবস্থানদৃষ্টে মনে হচ্ছে ঘোড়া ও মোটরসাইকেলে ভোটের লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি। শেষ পর্যন্ত ফলাফল কি হয় তা দেখার জন্য উপজেলা বাসীর চোখ এখন নির্বাচনের দিনের দিকে। নির্বাচনের আর মাত্র দুই দিন বাকি। তাই গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেয়া চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা নিজ নিজ কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নির্ধারিত এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন। বাসায় ফিরে পরের দিনের কর্মসূচি নিয়ে পরিকল্পনা করছেন।এর ফলে তাদের চোখের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। কার চেয়ে কে বেশি কৌশল প্রয়োগ করে নিজের অবস্থান জোরদার করবেন এ নিয়ে রীতিমতো প্রতিযোগিতা চলছে। আর এ কৌশল অবলম্বন করেই যার যার ভোট ব্যাংকের বাইরে থাকা ভোটারদের কাছে টানার চেষ্টা চলছে। নির্বাচনের পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে নির্বাচন কমিশন ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। প্রশাসন আইনশৃঙ্খলা পরিস্তিতি নিয়ন্ত্রণে যাবতীয় প্রস্ততি নিয়েছে। ভোটের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই জয়-পরাজয়ের ফ্যাক্টর হিসেবে সামনে আসছে বিভিন্ন সমীকরণ। ছোট বড় রাজনৈতিক দল, প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা, ব্যবসায়িক ও সামাজিক সংগঠনের সমর্থক এবং প্রশাসনিক লোকজনের অবস্থানের ওপর নির্ভর করে নানামুখী সমীকরণ আলোচনায় আসছে। প্রার্থীদের মধ্যে কার পাল্লা ভারি তাও নির্ভর করছে এই সমীকরণের ওপর।

এখন পর্যন্ত গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পরিবেশ প্রশংসনীয়। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও প্রশাসনের লোকজন নিরপেক্ষভাবে কাজ করে যাচ্ছে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এবার প্রচারযুদ্ধে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় বর্তমান চেয়ারম্যান ও সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মোহাম্মদ ফারুক আহমদ। অপর দিকে সিলেট জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ বর্তমানে বহিষ্কৃত ও গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহ আলম স্বপন প্রচারযুদ্ধে পিছিয়ে নেই।

ভোটারদের একাংশ বলছেন, সততা, নিষ্ঠা ও পরিচ্ছন্নতায় এলাকা ভিত্তিক এগিয়ে আছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফারুক আহমদ। তার চলতি মেয়াদে গোয়াইনঘাটে উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মোহাম্মদ ফারুক আহমদের বিকল্প নাই। অপর দিকে ভোটারদের আরেক অংশ বলছেন, মন-মানসিকতা, সততা ও যোগ্যতায় আলহাজ্ব শাহ আলম স্বপন অনেক এগিয়ে আছেন। কাজেই তারা কে কোন দলের প্রার্থী সেটা বিবেচনায় নিতে চান না। তারা ভোট দেবেন প্রার্থীর ব্যক্তিগত ইমেজ, সততা ও যোগ্যতা দেখে।

ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব শাহ আলম স্বপন জানান, উপজেলার খেটে খাওয়া মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য একটি উন্নত মডেল উপজেলা গঠনই তার মূল লক্ষ্য। তিনি আরও জানান, তিনি নির্বাচিত হলে উপজেলাকে সন্ত্রাস ও দুর্নীতি মুক্ত হিসেবে গড়ে তুলবেন। প্রান্তিক কৃষকদের কৃষি উপকরণ সরবরাহ এবং সরকার প্রদত্ত ভর্তুকি প্রকৃত কৃষকদের বন্টনের ব্যবস্তা করবেন। বেকার যুবকদের তথ্য ও প্রযুক্তিগত প্রশিক্ষণ ও তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবেন। গ্রামীন রাস্তাঘাট ও সড়কের উন্নয়ন, প্রকৃত ভাতা ভোগীদের প্রাধান্য দিয়ে ভাতার সুষম বন্টন, জমি জাল জালিয়াতি এবং ভুমিদস্যুদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করাসহ শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের মান উন্নয়নকরণ। সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি ও সহ অবস্থান নীতি বজায় রেখে শান্তি প্রতিষ্ঠাসহ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদ, মাদ্রাসা, কবরস্থান ও মন্দিরসূমহের মানোন্নয়ন. শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদান রাখাসহ বিভিন্ন বিষয়ে গুণীজনদের সম্মাননা প্রদান করা হবে। সর্বোপরি জনগণের সার্বিক উন্নয়ন এবং ব্যক্তি পর্যায়ের সবাইকে নিয়ে দলমত নির্বিশেষে কাজ করা হবে। এ ছাড়া স্বচ্ছ, জবাবদিহিমূলক সমৃদ্ধ গোয়াইনঘাট গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

অপরদিকে মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফারুক আহমদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মো. তৌহিদুল ইসলাম জানান, আগামী ২১ মে গোয়াইনঘাটে ৮৪টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মোট ভোটার রয়েছে ২ লক্ষ ২৯ হাজার ৯শ ৪১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ১ লক্ষ ১৮ হাজার ৬ শত ৩৭ জন। ১ লক্ষ ১১ হাজার ৩ শত ৪ জন মহিলা ভোটার রয়েছে। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনা ক্ষেত্রে সবধরনের প্রস্তুতি রয়েছে বলেও জানান তিনি।

Facebook Comments Box

Posted ৯:৩৪ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

ajkersangbad24.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

সম্পাদক
ফয়জুল আহমদ
যোগাযোগ

01712000420

fayzul.ahmed@gmail.com