শুক্রবার ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

জগন্নাথপুরের সাংবাদিকতার ইতিহাস শংকর রায়

রেজুওয়ান কোরেশী, জগন্নাথপুর   |   বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪   |   প্রিন্ট   |   30 বার পঠিত

জগন্নাথপুরের সাংবাদিকতার ইতিহাস শংকর রায়

শংকর রায় সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের সংবাদিকতা জগতের এক ইতিহাস। সেই সত্তর দশকের শেষের দিকে সংবাদকর্মী হিসেবে যাত্রা শুরু করে মৃত্যু আগ মুহূর্ত পর্যন্ত সক্রিয়ভাবে গণমাধ্যমে সক্রিয় ছিলেন। বয়সের চাপ পড়লেও শহর থেকে প্রত্যন্ত গ্রামগঞ্জে সংবাদ সংগ্রহে চষে বেরিয়েছেন।

প্রবীণ সংবাদিক সোমবার (২২ এপ্রিল) রাতে হঠাৎ করেই চলে গেলেন না ফেরার দেশে। তিনি জগন্নাথপুর প্রেসক্লাবের আমৃত্যু সভাপতি ছিলেন।
সোমবার রাত ১টার দিকে নিজ বাড়িতে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাংক্ষণিকভাবে তাঁকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন।

মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় নিজ গ্রামের শ্মশানঘাটে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে।জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শংকর রায় ১৯৮২ সালের দিকে সিলেট থেকে প্রকাশিত সপ্তাহিক দেশ বার্তা পত্রিকায় জগন্নাথপুর প্রতিনিধি হিসেবে প্রথম সংবাদকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করেন। এরপর তিনি জাতীয় দৈনিক খবর, সিলেট বানী, খবর গ্রুপের চিত্রবাংলাসহ বিভিন্ন ম্যাগাজিনে কাজ করেছেন। ১৯৯৭ সালে ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার প্রতিষ্ঠাকাল থেকে জগন্নাথপুর প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এছাড়াও তিনি সিলেটের দৈনিক উত্তর পূর্ব পত্রিকায় জগন্নাথপুর উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে সততার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।প্রবীণ এই সাংবাদিক ১৯৮৬ সালে জগন্নাথপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা অর্থ সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বপালন করেন। এরপর তিনি ১৯৯০ সাল থেকে  জগন্নাথপুর প্রেসক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তিনি ছাত্রজীবনে ছাত্র ইউনিয়নের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। বর্ণাঢ্য জীবনে তিনি নাট্যকর্মী এবং ৪০ বছরের অধিক সময় ধরে নিয়মিত সাংবাদিকতা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। জগন্নাথপুরের জনপ্রিয় সামাজিক সাংস্কৃতিক ও নাট্যসংগঠন নাট্যবাণীর সংগঠক হিসেবে নাটক ও গানে তাঁর সরব পদচারণা ছিল। সক্রিয় সাংবাদিকতার কারণে ২০১০ সালে দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার সেরা দশ প্রতিনিধির একজন হিসেবে পুরস্কৃত হন।একজন সক্রিয় সাংবাদিক হিসেবে তাঁর সক্রিয়তা ছিল লক্ষ্যণীয়।

বৃটেনের জনপ্রিয় হু ইজ হু”র সম্পাদক ও বাংলা মিররের সম্পাদক সিনিয়র সাংবাদিক আব্দুল করিম গণি জানান,  শংকর দা নেই এখনও বিশ্বাস হচ্ছে না। জগন্নাথপুরের সংবাদ জগতের এক উজ্জ্বল নকত্র হয়ে আমাদের মধ্যে থাকবেন।

শংকর রায়ের সহকর্মী সাংবাদিক  আলী আহমদ জানান, মনেই হচ্ছে না শংকর দা নেই। মনে হচ্ছে এই তো অফিসের পাশের চেয়ার টাই বসে আছেন। প্রায় ১৫ বছর আমরা এক সঙ্গে কাজ করেছি। বয়সে প্রবীন হলেও আমাদের সঙ্গে বন্ধুপূর্ণ সর্ম্পক ছিল। আমার সহকর্মী অমিত দেব ও জুয়েল আহমদ আমরা দাদা কে কাজের ফাকে আড্ডার মেতে উঠলাম। কিন্তু জগন্নাথপুরের কোন সংবাদ তথ্যে পেলেই তিনি সক্রিয় হয়ে উঠলেন। জগন্নাথপুরের সংবাদিকতায় তাঁর অবদান কোনও জগন্নাথপুরবাসী ভুলবে না।

Facebook Comments Box

Posted ৯:৪২ অপরাহ্ণ | বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪

ajkersangbad24.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

সম্পাদক
ফয়জুল আহমদ
যোগাযোগ

01712000420

fayzul.ahmed@gmail.com