শুক্রবার ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

আব্দুল হান্নান চৌধুরী টুনু মিয়ার বর্ণাঢ্য জীবন

মো. আজিজুর রহমান   |   শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪   |   প্রিন্ট   |   57 বার পঠিত

আব্দুল হান্নান চৌধুরী টুনু মিয়ার বর্ণাঢ্য জীবন

মা, মাটি ও মানুষ জীবনে এই তিন নিয়ে চলেছিলেন প্রয়াত আব্দুল হান্নান চৌধুরী টুনু মিয়া। আব্দুল হান্নান চৌধুরী ১৯৩৪ সালে ৫ জানুয়ারি সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার নন্দিরগাওঁ ইউনিয়নের নওয়াগাওঁ গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা আব্দুল মতিন চৌধুরী ছিলেন অবিভক্ত নন্দিরগাওঁ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং মা সৈয়দা আলিমা খাতুন ছিলেন গৃহিণী। পরিবারের গণ্ডি ছাড়িয়ে তিনি মানবসেবার মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য দিবানিশি কাজ করে গেছেন। তিনি চলার পথে সর্বদা মানুষের আপদে-বিপদে সহায়তা ও সহমর্মিতার পরিচয় দিয়েছেন। তাঁর সমগ্র জীবনে সাহায্যপ্রার্থীর প্রতি অকৃপণভাবে হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের হাতে গড়া জাগদলে একজন নেতৃস্থানীয় নেতা ছিলেন। পরবর্তীতে নন্দিরগাওঁ ইউনিয়ন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও গোয়াইনঘাট উপজেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সহসভাপতি হিসেবে দীর্ঘদিন সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেন। নওয়াগাওঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটিতে একাধারে ৩০ বছর সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও আঙ্গারজুর আলিম মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি হিসেবে সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮০ সালের ২৪ মে প্রেসিডেন্ট জিয়া প্রতিটি গ্রাম সরকার গঠনের উদ্যোগ নেয়ার পর থেকে আব্দুল হান্নান চৌধুরী নন্দিরগাওঁ ইউনিয়নের গ্রাম সরকার প্রধান এবং গোয়াইনঘাট উপজেলার গ্রামসরকার প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে সিলেট জেলা গ্রাম সরকারের-৪ (চার) সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৫ সালে তার পিতা আব্দুল মতিন চৌধুরী গোয়াইনঘাট উপজেলার অবিভক্ত নন্দিরগাওঁ ইউনিয়ন (বর্তমান নন্দিরগাওঁ, তোয়াকুল ও দক্ষিণ রণীখাই) পরিষদের চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে তিনি সরকার নমনী ইউপি সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সরকার নমনী ইউপি সদস্য থাকার সুবাদে এসময় তার পিতা চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন চৌধুরীর নেয়া বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ ও সালিসি বৈঠকে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রেখেছেন। তিনি প্রায় ৫ যুগের অধিক সময় ধরে নওয়াগাওঁ মাঝপাড়া জামে মসজিদে ৫ ওয়াক্ত আযান দিয়েছেন এবং মোতাওয়াল্লীর দায়িত্ব পালন করেছেন। আব্দুল হান্নান চৌধুরীর প্রয়াত অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম সাইফুর রহমান ও সাবেক এমপি নাজিম কামরান চৌধুরীর সাথে অত্যন্ত আন্তরিক সম্পর্ক ছিল। আব্দুল হান্নান চৌধুরীর ব্যক্তিগত জীবনে দুই ছেলের জনক। তার বড় ছেলে নন্দিরগাওঁ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন। এছাড়াও গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের দুইদুই বারের সাবেক নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন।
তার সামাজিক ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড এবং একজন ইসলামি মুল্যবোধের মানুষ হিসেবে সিলেট জেলাজুড়ে স্বজন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিতি ছিলেন।
তার জানাজায় হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতি সেটাই প্রমাণ করে। আব্দুল হান্নান চৌধুরী টুনু মিয়া গত ৫ জানুয়ারি বার্ধক্যজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেন। গোয়াইনঘাট উপজেলার দশগাওঁ নয়াগাঁও উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে জানাজার নামাজ শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে পিতা-মাতার কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়। আমি তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। মহান আল্লাহ তায়ালা তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস নসিব করুন। আমিন।
লেখক : সাংবাদিক।

Facebook Comments Box

Posted ৯:১২ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ajkersangbad24.com |

এ বিভাগের আরও খবর

সম্পাদক
ফয়জুল আহমদ
যোগাযোগ

01712000420

fayzul.ahmed@gmail.com